অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গা শিশুর জীবন

অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গা শিশুর জীবন

মিয়ানমারে রাখাইন রাজ‌্যে প্রথমে রোহিঙ্গা যুবকদের হত্যা করা হয়। তারপর রোহিঙ্গা নারী ও মেয়েদের ওপর চালানো হয় ভয়াবহ যৌন নির্যাতন!আর শেষে নির্যাতন ও হত্যা করা হয় রোহিঙ্গা শিশুদের। কখনও কখনও তাদের আগুনে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে বলে নিশ্চিত হয়েছেন জাতিসংঘের তদন্ত টিমসহ বিশ্ব নেতারা।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীসহ বিশ্ব নেতারা রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। রোহিঙ্গাদের দেখতে আসা বিশ্ব নেতাদের কাছে রোহিঙ্গাদের বর্ণনায় উঠে এসেছে রাখাইনের গণহত্যা এবং জাতিগত শুদ্ধি বা নির্মূল অভিযানসহ ভয়াবহ ও পৈশাচিক অপরাধযজ্ঞের বিবরণ।

২০১৭ সালের ২৫ আগষ্টের পর মায়ের সাথে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা এক শিশু অপলক দৃষ্টিতে থাকিয়ে আছে এই মায়াভরা পৃথিবীতে। বালুখালী টু ময়নাঘোনা ১১ নাম্বার ক্যাম্পে অনিশ্চিয়তায় বেড়ে ওঠা শিশুটিকে দেখতে পান এই প্রতিবেদক। এ রকম হাজারো রোহিঙ্গা শিশু বেড়ে ওঠছে ছোট্ট ছোট্ট ঘরে।

জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থাগুলোর আপত্তি সত্বেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর কাজ চুড়ান্ত করে এনেছে বাংলাদেশ সরকার। ২০১৮ সালের ১৫ নভেম্বর জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রত্যাবাসন শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে মিয়ানমারে অনুকূল পরিবেশ না থাকার অজুহাতে প্রত্যাবাসনের তালিকায় থাকা রোহিঙ্গাদের নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া, ট্রানজিট ক্যাম্পে তাদের স্থানান্তর না করাসহ নানা কারণে প্রত্যাবাসন শুরু করা সম্ভব হয়নি। কবে নাগাদ তাদের প্রত্যাবাসন শুরু হবে তা নিয়ে এখনও রয়েছে সংশয়।

একাধিক রোহিঙ্গার সাথে কথা হলে তারা অনেকেই মিয়ানমারে ফিরতে চান না বলে সাফ জানিয়েছেন। সেখানে এখনো ফেরার মতো পরিবেশ তৈরি হয়নি বলে অভিযোগ তাদের।

মিয়ানমারে ফিরে গেলে কী হবে তা ভেবে আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা। রাখাইনে উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি না হওয়ার আগে তাদের ফেরত পাঠালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জীবন ফের ঝুঁকিতে পড়বে বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতা জিয়াবুর রহমান।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিবিরগুলোর শোচনীয় অবস্থা ও তাদের চরমপন্থী হয়ে ওঠার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

তিনি বলেন, তারা বেকার ও শিক্ষার কোনও ব্যবস্থা নেই এবং সারাদিন তারা এক জায়গায় থাকছে এমন পরিণতি কে চাইতে পারে?

তিনি আরও বলেন, মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে হবে যাতে রোহিঙ্গারা স্বাভাবিক ও স্থিতিশীল অবস্থায় থাকতে পারেন। আর তা সম্ভব না হলে রোহিঙ্গা মুসলমানদের অপেক্ষাকৃত বেশি নিরাপদ অঞ্চলে পাঠানো অনিবার্য হয়ে পড়বে।

জাতিসংঘ ২০১৮ সালের এক প্রতিবেদনেও মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়গুলোর ওপর গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধসহ ব্যাপক সহিংসতা ঘটার বিষয় উল্লেখ করা হয়েছিল।