ভারতীয় সেনাদের হাতে বেধড়ক মার খেয়েছিল কাশ্মীরের সেই হামলাকারি

ভারতে সেনাবাহিনীর হাতে একসময় বেধড়ক মার খেয়েছিল কাশ্মীরের পুলওয়ামার আত্মঘাতী হামলাকারী আদিল আহমেদ দার। সেনাদের হাতে মার খেয়েই জঙ্গি দলে যোগ দেয় সে। সংবাদমাধ্যমে এমনটাই জানিয়েছেন জঙ্গি আদিলের বাবা গুলাম হাসান দার।

গত বৃহস্পতিবার কাশ্মীরের পুলওয়ামার অবন্তীপুরায় দেশটির কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর (সিআরপিএফ) কনভয়ে বিস্ফোরক ভর্তি একটি এসইউভি নিয়ে হামলা চালায় লেথিপোরার ২০ বছরের যুবক আদিল দার। এতে হামলায় ৪২ জওয়ান নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৪০ জনেরও বেশী।

পেশায় চাষি আদিলের বাবা গুলাম হাসান দার জানিয়েছেন, জওয়ানদের ঘরে আজ যে যন্ত্রণা, আমার ঘরেও আমরা সেই একই যন্ত্রণা ভোগ করছি। ২০১৬ সালে স্কুল থেকে ফেরার সময়ে আদিল ও তার বন্ধুবান্ধবদের একবার আটকে বেধড়ক মারধর করেছিল সেনা জওয়ানরা। ওর বিরুদ্ধে পাথর ছোড়ার অভিযোগ ছিল। তার পরেই ও জঙ্গি দলে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় আদিল।

বৃহস্পতিবার পুলওয়ামার হামলার পর একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে আদিল ওই হামলার কথা স্বীকার করে।

আদিলের মা ফাহমিদা সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, বছরখানেক আগে স্কুল থেকে ফেরার সময় ওকে একবার জওয়ানরা মারধর করে। তার পর থেকেই ওর জওয়ানদের ওপরে রাগ ছিল। তবে কীভাবে এবং কখন জঙ্গি দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছে আমরা বুঝতে পারিনি।

এছাড়া তিনি আরো জানান, গত বছর মার্চ মাস থেকে ওর খোঁজ পাইনি আমরা।

গুলাম হাসান দার আরও জানিয়েছেন, আমার ছেলের মৃত্যুর জন্য দায়ী নেতারা। কাশ্মীর সমস্যার সমাধান আলোচানার মাধ্যমে না করলে এই রক্ত ঝরবেই। রাজনীতির জন্যই আমাদের ছেলেরা জঙ্গি হয়ে যাচ্ছে।সাধারণ ঘরের ছেলেরা মরছে, তা সে জওয়ানই হোক বা জঙ্গি।

কাশ্মীরের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এমন হামলার জন্য পাকিস্তানকে চরম জবাব দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ভারত।

ভারতের সব রাজনৈতিক নেতারা এমন হামলার প্রতিবাদে এক হয়েছে। দেশটির ক্রিকেটার থেকে শুরু করে বড় বড় অভিনেতা অভিনেত্রীরা এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। কেউ সরাসরি এর বদলা নেয়ার হুমকি দিয়েছেন।