দুই যুবলীগ নেতার নামে সাইনবোর্ড টানিয়ে প্রবাসির জমি দখলের অভিযোগ

দুই যুবলীগ নেতার নামে সাইনবোর্ড টানিয়ে প্রবাসির জমি দখলের অভিযোগ

কক্সবাজার শহরের কলাতলী হোটেল-মোটেল জোন এলাকায় দুইজন যুবলীগ নেতার নামে সাইনবোর্ড ব্যবহার করে সৌদিআরব প্রবাসি আনোয়ার হোসাইনের মালিকানাধীন প্রায় চার কোটি টাকা মূল্যের জমি জবর দখলের অভিযোগ উঠেছে।

এক সম্মেলন ডেকে জমির মালিক আনোয়ার হোসাইন নিজেই সাংবাদিকদের সামনে এই অভিযোগ তুলেছেন। তার অভিযোগ, আওয়ামী যুবলীগ কক্সবাজার জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল এবং যুবলীগ নেতা ও কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহকারি রেজিষ্ট্রার কুতুব উদ্দিনের ‘ক্রয়সূত্রে মালিক’ উল্লেখ করে সাইন বোর্ড টানানো হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কক্সবাজার প্রেস ক্লাবে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে জমির মালিক ও ‘৯৯ ব্রাইডাল হাউসে’র মালিক আনোয়ার হোসাইন জানান, এই ঘটনার পর শহিদুল হক সোহেলসহ আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে কথা বলেও কোন লাভ হয়নি। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার মিলছে না।

তিনি জানান, তার জমির জবরদখলকারিদের কাছ থেকে রেহাই পেতে তিনি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, ভূমি মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি), আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার জেলা যুবলীগের সভাপতি, কক্সবাজার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলসহ জেলার অন্য তিন সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত ভাবে অভিযোগ করেছেন। রেজিষ্ট্রি ডাকযোগে এই অভিযোগ পাঠানো হয়েছে।

সৌদি প্রবাসি আনোয়ার হোসাইন কক্সবাজার পৌরসভার টেকপাড়ার বাসিন্দা মরহুম নূর আহমদের ছেলে ও নূর ম্যানশনের মালিক।

সংবাদ সম্মেলনে আনোয়ার হোসাইন বলেন, কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা মৌজার মূল বিএস-৩০৬৮ নাম্বার খতিয়ানের বিএস-২০০৪৬ নাম্বার দাগের তুলনামূলক সৃজিত বিএস-১০০৮৭ নাম্বার খতিয়ানের বিএস-২০০৪৬ দাগের সম্পূর্ণ .০৭ একর জমির দলিল মূলে খরিদ সূত্রে মালিক।

তিনি জানান, ২০১০ সালে রেজিঃযুক্ত ৩৬৪৮ নাম্বার কবলা দলিল মূলে খরিদ করে চারপাশে বাউন্ডারি দেয়াল, সী-নূর কটেজ ও মার্কেট নির্মাণ করে শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখলে আছেন। তাছাড়াও কলাতলী ডলফিন মোড়স্থ ৯৯ ব্রাইডেল হাউসসহ একাধিক প্রতিষ্ঠান মাধ্যমে অত্যন্ত সুনামের সাথে ব্যবসা করছেন।

তিনি বলেন, আমি সৌদি আরব প্রবাসী। ব্যবসা-বাণিজ্য করে উপার্জিত অর্থে পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগ করে আসছি। রেমিটেন্স পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করতে ভূমিকা পালন করছি। দুঃখের বিষয়, আমার ভোগদখলীয় মালিকানাধীন জমি রাতারাতি দখল করার জন্য পাঁয়তারা শুরু করেছে একটি দখলবাজ চক্র।

তার মতে, ‘আমার মালিকানাধীন ও দখলীয় জমিতে কক্সবাজার জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল, যুবলীগ নেতা কুতুব উদ্দিনের নামে সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে। রাতারাতি ইটসহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী মজুদ করে স্থাপনা করা হচ্ছে। স্থানীয় সরকার দলীয় শীর্ষ নেতা ও পুলিশ প্রশাসনকে লিখিত অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না।’
আনোয়ার হোসাইনের অভিযোগ, যুবলীগ নেতা শহিদুল হক সোহেলের সাথে বারবার যোগাযোগ করেও তিনি কোন সাড়া দেননি। মালিকানার স্বপক্ষে কাগজপত্র দেখাতে বললেও দেখাতে পারেননি। তিনি বৈঠকের কথা বলে সময় ক্ষেপন করছেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছে না দখলবাজরা।

সংবাদ সম্মেলনে প্রবাসি আনোয়ার হোসাইনের নিকটাত্মীয় বেলাল উদ্দিন তৌহিদ, জিয়াউল হক, এরশাদ হোসেন ও মোহাম্মদ শোয়াইব উপস্থিত ছিলেন।