তরুণীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে টাকা হাতানো যার নেশা!

তরুণীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা করার অভিযোগে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজার থেকে আল-আমীন নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

রোববার র‌্যাব-১০ এর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার বিভিন্ন ভুঁয়া পরিচয় পাওয়া যায়।

আল-আমীন ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার খারুয়া ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মো. গিয়াস উদ্দিনের ছেলে।

জানা যায়, দশম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় সৌদি আরব চলে গিয়েছিলেন আল-আমীন। তিনবছর পর দেশে ফিরে তিনি হয়ে যান কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজের সাবেক ছাত্র, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) পাস করা প্রকৌশলী, যিনি একটি মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানির মস্ত বড় কর্মকর্তা! লিবিয়ার ত্রিপোলিতে উচ্চশিক্ষা নেয়ার কথাও আছে। নিজের নামের সঙ্গেও জুড়ে দিয়েছেন সুইজারল্যান্ডের পিএইচডি ডিগ্রী এবং অ্যাপল কোম্পানির সাবেক নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারের পরিচয়!

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের প্রোফাইলে ভুঁয়া পরিচয় দিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় ৫০ জন তরুণীর কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে আল-আমীনের বিরুদ্ধে।

রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর কাছ থেকে আট লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় ধরা পড়েন তিনি। তারপরই এ যুবকের প্রতারণার সব ঘটনা বেরিয়ে আসে।

র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, আল-আমীন ফেসবুকে মাহবুব সালাম ফাহিম (ইংরেজি) নাম ব্যবহার করছিলেন আইডিতে।

তিনি র‌্যাবকে জানিয়েছেন, তিনি ২০০৯ সালে সৌদি আরবে যান। সেখানে তিনি প্রাইভেট কার চালকের চাকুরি করতেন। তিনবছর পর দেশে ফিরে রাজধানীতে একটি ভাড়া বাসায় থাকতে শুরু করেন। বিয়েও করেন, তার স্ত্রী একটি বেসরকারি টিভির সংবাদ পাঠিকা। এর মধ্যে ফেসবুকে আইডি খুলে তিনি নিজের ওই সব পরিচয় দিয়ে প্রতারণা শুরু করেন। জাল জাতীয় পরিচয়পত্র বানিয়ে নিজেকে নান্দাইলের সাবেক এক সংসদ সদস্যের ছেলে হিসেবে পরিচয় দিতেন। তরুণীদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে এবং নিজের দুরাবস্থার কথা তুলে ধরে টাকা আদায় করতেন।

গত বছর ২৪ ডিসেম্বর রাজধানীর সূত্রাপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী। বিষয়টি তিনি র‌্যাব-১০ এর কর্মকর্তাদেরও জানান।

ওই তরুণীর বরাত দিয়ে র‌্যাব-১০ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আশরাফুল হক বলেন, চার মাস আগে ফেসবুকে মেয়েটির সঙ্গে আল-আমীন ওরফে ফাহিমের পরিচয় এবং প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে আল-আমীন তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

সর্ম্পকের একপর্যায়ে তিনি তরুণীকে জানান, দীর্ঘদিন সুইজারল্যান্ডে থাকায় বাংলাদেশে তার ছয়টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে আছে। যে কারণে তার কাছে পর্যাপ্ত টাকা নেই। তিনি সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত, চোখেও আঘাত পেয়েছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তার প্রচুর টাকা প্রয়োজন। এসব শুনে মেয়েটি তিন ধাপে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের একটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে প্রায় আট লাখ টাকা দেন আল-আমীনকে।

অভিযোগ তদন্ত করে র‌্যাব-১০ শেষ পর্যন্ত আল-আমীনকে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে।

আল-আমীনের মা মনোয়ারা বেগম জানান, তার ছেলে খুবই ভালো ছিল। বিদেশ থেকে আসার পর কিছুটা খারাপ হয়ে যায়। তারা জমি বিক্রি করে আল-আমীনের প্রতারণার শিকার অনেককে টাকাও ফেরত দিয়েছেন। সংবাদ পাঠিকাকে বিয়ে করে সংসার করার এবং সে ঘরে একটি সন্তান থাকার কথাও জানান তিনি।

গ্রামের লোকজন জানান, আল-আমীন ওরফে ফাহিম গ্রামেও একটি বিয়ে করেছিলেন। সেই ঘরে একটি সন্তান রয়েছে। স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর সন্তানকে ঢাকায় নিয়ে গেছেন। সবাই জানে এ যুবক একজন প্রতারক। ঢাকায় থেকে তিনি নানা অপকর্ম করে আসছেন।