পূণর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ করা যাবে না, বললেন এমপি কমল

কক্সবাজার শহরে কয়েকদিন ধরে যে উচ্ছেদ অভিযান চলছে তার ক্ষোভ জানিয়ে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, ‘উচ্ছেদ করতে গেলে সরকারের অনুমতি লাগে, নোটিশ দিতে হয়। উচ্ছেদ করতে হলে সরকারের দুদক অথবা জেলা প্রশাসন যে কোন সময় যে কোন জায়গায় উচ্ছেদ অভিযান চালাতে পারে। যারা পাহাড় কাটছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে, যারা ঝুঁকিপুর্ণ পাহাড়ে ঘরবাড়ি করেছে তাদের সরে যাওয়ার জন্য নোটিশ দিতে পারে। কিন্তু কোন নোটিশ বা খবরাখবর ছাড়াই ঘরবাড়ি যেভাবে ভাঙ্গা শুরু করেছে তাতে আমি ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

এমপি কমল বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পূণর্বাসন ছাড়া কোন বসতি উচ্ছেদ হবে না। প্রধানমন্ত্রীর এ কথা বাংলাদেশের সকলকে মানতে হবে।

সোমবার (৪ জানুয়ারি) কক্সবাজার জেল গেইট এবং তার আগে ফাতের ঘোনায় যে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে, তাতে দেখা গেছে কিছু ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি যেমন রয়েছে, তেমনি বেশির ভাগই সমতল এবং খতিয়ানভুক্ত জমির বাড়ি উচ্ছেদ করা হয়েছে। এ উচ্ছেদ অভিযানে সাধারণ মানুষের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তার মতে, তীব্র শীতে খোলা আকাশের নিচে সাধারণ মানুষ মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। অনেক পরিবারের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নিতে পারছে না। জনস্বার্থে বাস্তব অবস্থা চিন্তা করে উচ্ছেদ অভিযান চালানো দরকার।

কমল বলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সাথে মিটিং এবং উচ্ছেদ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলাপ করবো। পরবর্তী সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত আজকে থেকে কোন উচ্ছেদ করা যাবে না। যদি উচ্ছেদ করেন তাহলে যার দায়িত্বে সে করবেন। আমরা কোন দায়িত্ব নেবো না।

মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার জেল গেইট এলাকায় উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্ত বিক্ষুব্ধ জনতার উদ্দেশ্যে এমপি কমল এসব কথা বলেন।

সকালে এমপি কমল ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শনে গেলে উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্থ হাজারো জনতা সেখানে জড়ো হন। এসময় অসহায় মানুষের কান্না ও প্রতিবাদের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠে।

এমপি কমল সবাইকে শান্তনা জানিয়ে বলেন, আপনার কেউ হতাশ হবেন না। শীঘ্রই এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান হবে।

তিনি উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্তদের ডেউটিন প্রদান ও আর্থিক সহযোগিতা করার ঘোষণা দেন। সেই সাথে সমাজের বিত্তবান ও দানশীল ব্যক্তিদের উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানান।

এসময় ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান টিপু সুলতানসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।