পাল্টে গেলো মমতাজের শিক্ষাগত যোগ্যতা ও স্বামীর নাম

নির্বাচনের আগ মুহূর্তে পাল্টে গেছে কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের শিক্ষাগত যোগ্যতা ও স্বামীর নাম। এ জন্য তিনি নির্বাচন কমিশনে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের আবেদন করেছিলেন। গত মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) সংশোধিত জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পেয়েছেন আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মানিকগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া এই সংসদ সদস্য।

সংশোধনী ফরমে স্বামী রমজান আলীর স্থলে এ এস এম মঈন হাসান এবং শিক্ষাগত যোগ্যতায় পঞ্চম শ্রেণির স্থলে দশম শ্রেণি করতে চেয়েছিলেন মমতাজ। এ লক্ষ্যে আবেদন ফরমের সঙ্গে তিনি পাসপোর্ট, বিয়ের সনদ ও স্কুলের দশম শ্রেণির প্রশংসাপত্র জমা দিয়েছিলেন।

মমতাজ বেগম বলেন, ‘আমি আগেই সংশোধনের জন্য আবেদন করেছিলাম। আজ সংশোধিত জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পেয়েছি।’

নির্বাচন কর্মকর্তারা জানান, তফসিল ঘোষণার পর থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ও স্থানান্তর বন্ধ রয়েছে। তবে আইন অনুযায়ী কমিশনের অনুমোদন নিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করা হয়। সংসদ সদস্য মমতাজের আবেদনটিতে কমিশন অনুমোদন দিয়েছে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মানিকগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী। গত রোববার (২৫ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নৌকা প্রতীকে মনোনয়নের চিঠি পান তিনি।

প্রসঙ্গত, ফোক গানের সম্রাজ্ঞী খ্যাত মমতাজ বেগমের স্বামী ছিলেন মানিকগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র রমজান আলী। তবে বেশ কয়েক বছর আগে তাদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়। পরে তিনি চিকিৎসক এ এস এম মঈন হাসানকে বিয়ে করেন।