স্কাইপে বন্ধ: বিএনপির তৃতীয়দিনের সাক্ষাৎকারে যুক্ত হতে পারেননি তারেক রহমান

স্কাইপে বন্ধ: বিএনপির তৃতীয়দিনের সাক্ষাৎকারে যুক্ত হতে পারেননি তারেক রহমান

স্কাইপে বন্ধ: বিএনপির তৃতীয়দিনের সাক্ষাৎকারে যুক্ত হতে পারেননি তারেক রহমান

তারেক রহমানের ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে সাক্ষাৎকার নেয়া ছাড়াই চলছে জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তৃতীয়দিনের সাক্ষাৎকার।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় গুলশানের এই কার্যালয়ে ফেনী জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণের মাধ্যমে এদিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

সূচি অনুযায়ী, সকালে চট্টগ্রাম বিভাগ এবং বিকালে কুমিল্লা ও সিলেট বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়া হবে।

রবিবার বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়া শুরু হয়। সেদিন থেকে স্কাইপের মাধ্যমে সাক্ষাৎকার গ্রহণে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্ত হয়েছিলেন। কিন্তু সোমবার দুপুরের পর স্কাইপে বন্ধ হয়ে যায়। ফলে মঙ্গলবারও তারেক রহমান এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পারেননি। এছাড়া গুলশান কার্যালয়ে ইন্টারনেট সংযোগ এখনও বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

দলের সিনিয়র নেতারা বলছেন, তারেক জিয়া যেন মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাথে সাক্ষাৎকারে যুক্ত হতে না পারেন সেই হীনমন্যতা থেকেই সরকার পরিকল্পিতভাবে কার্যালয় এলাকায় ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করে রেখেছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে বন্দি এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডনে অবস্থান করছেন। তাদের অনুপস্থিতিতে দলের পার্লামেন্টারি বোর্ড মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম পার্লামেন্টারি বোর্ডে সভাপতিত্ব করছেন। এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা পার্লামেন্টারি বোর্ডে সদস্য হিসেবে আছেন।

সাক্ষাৎকারের প্রথম দিন রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। দ্বিতীয় দিন বরিশাল ও খুলনা বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়।

শেষ দিন বুধবার ময়মনসিংহ, ফরিদপুর ও ঢাকা বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণের মাধ্যমে চারদিনের সাক্ষাৎকার গ্রহণ শেষ হবে। এর আগে গত ১২ থেকে ১৬ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কাছে ৪ হাজার ৫৮০টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা হয়।

প্রতিটি মনোনয়ন ফরমের দাম ছিল ৫ হাজার টাকা। ফরম জমা দেওয়ার সময় ২৫ হাজার টাকা করে জামানত নেওয়া হয়। ৪ হাজার ৫৮০টি ফরম বিক্রি হলেও কতগুলো ফরম জমা পড়েছে সে বিষয়টি দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি।