দুই নারী কর্মীকে উত্যক্ত

কুতুপালং ক্যাম্পে ব্র্যাকের গাড়িতে রোহিঙ্গাদের হামলা, ৫ কর্মী আহত

কুতুপালং ক্যাম্পে ব্র্যাকের গাড়িতে রোহিঙ্গাদের হামলা, ৫ কর্মী আহত

কুতুপালং ক্যাম্পে ব্র্যাকের গাড়িতে রোহিঙ্গাদের হামলা, ৫ কর্মী আহত

কক্সবাজার শহর থেকে কাছের উপজেলা উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই নারী এনজিও কর্মীকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় বেসরকারি এনজিও ব্র্যাকের দুটি গাড়িতে হামলা চালিয়েছে রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গারা ব্র্যাকের ওই ২টি গাড়ি থামিয়ে এনজিও কর্মীদের নামিয়ে বেধড়ক মারধর করে। একপর্যায়ে রোহিঙ্গারা গাড়িটি ভাংচুর করে ও আগুন দেয়ার চেষ্টা করে।

রোহিঙ্গাদের পিটুনিতে ব্র্যাকের ৫ কর্মী আহত হন। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর।

ব্র্যাকের জেন্ডার বেসড ভায়োলেন্স জিবিভি’র টিম লিডার তাহমিনা ইয়াসমিন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বিকেলে কুতুপালং ক্যাম্পে কাজ শেষ করে তাদেন দুই নারী কর্মী রেজিস্ট্রার্ড রোহিঙ্গা শিবির দিয়ে ফিরে আসছিলেন। কিছু রোহিঙ্গা যুবক ওই দুই নারী কর্মীকে গাড়ি থেকে নামিয়ে উত্যক্ত করছিলো। ব্র্যাকের দুটি গাড়ি ওই পথ দিয়ে ফিরে আসার সময় ঘটনাটি দেখতে পায়।

তিনি জানান, গাড়ি দুটিতে থাকা এনজিও কর্মীরা রোহিঙ্গাদের কবল থেকে ওই নারী সহকর্মীকে উদ্ধার করতে গেলে রোহিঙ্গা যুবকরা ২টি গাড়িতে থাকা ব্র্যাক কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। রোহিঙ্গারা ব্র্যাক কর্মীদের বেধড়ক লাঠিপেটা করে।

এতে মুস্তাকিন, আতিক, তোহফা, শোয়েব ও জমির নামের ৫ কর্মী আহত হন। আহতদের মধ্যে মুস্তাকিমের অবস্থা গুরুতর। তাকে কক্সবাজার শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আহত এক ব্র্যাক কর্মী জানান, দুই নারী সহকর্মীকে গাড়ি থেকে নামিয়ে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় তাদের উপর হামলা চালানো হয়। রোহিঙ্গারা ২টি গাড়ি ভাংচুর করে। এক পর্যায়ে গাড়িতে আগুন দেয়ারও চেষ্টা করে তারা। খবর পেয়ে সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ আসলে রোহিঙ্গা যুবকরা পালিয়ে যায়।

কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইনচার্জ) রেজাউল করিম জানান, ব্র্যাকের দুই নারী কর্মীকে গাড়ি থেকে নামানোর জের ধরে রোহিঙ্গা ও ব্র্যাকের কর্মীদের মাঝে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। উভয়পক্ষের সাথে আলাপ করে ঘটনা নিস্পত্তির চেষ্টা চলছে।