কক্সবাজারে আয়কর মেলার আজ সমাপনী

তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়, ১৫৩৮ রিটার্ণ দাখিল

তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়, ১৫৩৮ রিটার্ণ দাখিল

তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়, ১৫৩৮ রিটার্ণ দাখিল

কক্সবাজার জেলা শহরে করদাতা-সেবাগ্রহীতাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্যদিয়ে শুরু হওয়া চারদিনের আয়কর মেলার তৃতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে শনিবার। তিনদিনে মোট রাজস্ব আদায় হয়েছে ৫৮ লাখ ৮৬ হাজার ৮৫৮ টাকা। রিটার্ণ দাখিল হয়েছে ১৫৩৮টি।

কক্সবাজারস্থ বিয়াম ফাউন্ডেশনের মাল্টিপারপাস হলরুমে চলমান মেলার তৃতীয় দিনে ৪৩৪ রিটার্ণের অনুকূলে কর আদায় হয়েছে ১৬ লাখ ৭৪ হাজার ৩৭৮ টাকা। তার আগের দিন (দ্বিতীয় দিন) দাখিলকৃত রিটার্ণ সংখ্যা ছিল ৭৮৮টি। বিপরীতে রাজস্ব আদায় হয়েছে ২৫ লাখ ৬৮ হাজার ৭৭৪ টাকা।

‘উন্নয়ন ও উত্তরণ, আয়করের অর্জন’-এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ১৫ নভেম্বর আয়কর মেলা শুরু হয়েছে। শেষ হবে আজ ১৮ নভেম্বর।

বিয়াম ফাউন্ডেশন কক্সবাজার আঞ্চলিক কেন্দ্র ইনানী মাল্টিপারপাস হলরুমে চলমান মেলার প্রথম দিন থেকে প্রায় ৩ হাজার লোক সেবা গ্রহণ করেছেন। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মেলার কার্যক্রম চলে।

কর অঞ্চল-৪ চট্টগ্রামের আয়োজনে মেলার তৃতীয় দিনে মেলায় করদাতা ও সেবা গ্রহণকারিদের মধ্যে ছিল উপচেপড়া ভিড়। সরকারি-বেরকারি চাকরিজীবী, শিক্ষক, আইনজীবীসহ সব পেশার মানুষের পদচারণায় মেলা প্রাঙ্গণ ছিল উৎসবমুখর। বিশেষ করে নারী ও তরুণ করদাতাদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।

কক্সবাজার আয়কর অফিসের পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) আমান উল্লাহ জানান, এবারের মেলায় বাড়তি আকর্ষণ ছিল দেশে প্রচলিত আয়কর সম্পর্কে জানার লক্ষ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল, কলেজ) শিক্ষার্থীদের উপস্থিত রেখে মেলা উদ্বোধন করা হয়। নতুন প্রজন্মের করদাতাদের আয়কর স¤পর্কে সচেতন করতে এই মেলায় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির বিকল্প ব্যবস্থা ছিল।

নতুন ও পুরাতন ই-টিআইএন গ্রহণ, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্ট ব্যবস্থাও রয়েছে। মেলায় মুক্তিযোদ্ধা, সিনিয়র সিটিজেন, মহিলা, প্রতিবন্ধী করদাতাদের জন্য রয়েছে আলাদা বুথ।

ন্যায়ভিত্তিক অর্থ ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রতিবছরের মতো এবারও আয়কর মেলা আয়োজন করা হয়। মেলার মাধ্যমে কর বিভাগের সঙ্গে জনসম্পৃক্ততা বাড়ানো ও কর প্রদানের উৎসাহ প্রদান করা হচ্ছে।

কর অঞ্চল-৪, চট্টগ্রাম পরিদর্শী যুগ্ম-কর কমিশনার মোহাম্মদ মাসুদ রানা, কর পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়া, মোঃ জুনাইদ, আনম হামিদ, মুহাম্মদ আমান উল্লাহসহ অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারিরা মেলায় দায়িত্ব পালন করছেন।