সদর-রামুতে ইসলামী আন্দোলনের চুড়ান্ত প্রার্থী ডা. আমীন

সদর-রামুতে ইসলামী আন্দোলনের চুড়ান্ত প্রার্থী ডা. আমীন

সদর-রামুতে ইসলামী আন্দোলনের চুড়ান্ত প্রার্থী ডা. আমীন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের চূড়ান্ত প্রার্থী মনোনীত হয়েছেন ডাঃ মুহাম্মদ আমীন। দলীয় প্রতীক ‘হাতপাখা’ নিয়ে নির্বাচন করবেন তিনি।

দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুসারে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম (পীর সাহেব চরমোনাই) ডাঃ মুহাম্মদ আমীনের প্রার্থিতা ঘোষণা করেন।

সম্প্রতি দেশের স্থানীয় ও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে চমক সৃষ্টি করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। তারই ধারাবাহিকতায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজারের গুরুত্বপূর্ণ এই আসনটিতেও নিজেদের অবস্থান জানান দিতে চায় দলটি।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ একসময় রাজনীতির বাইরে ছিল। তারা আধ্যাতিœক একটি দল হিসেবে পরিচিত ছিল। কর্মকা- ছিল অনেকটা পীর-মুরিদ কেন্দ্রিক। কালক্রমে দলের অবস্থান, দেশের প্রয়োজনীয়তা বিবেচনায় এনে তারা এখন অনেকটা পুরোপুরি রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থিতা ঘোষণা করছে।

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের প্রার্থী ডাঃ মুহাম্মদ আমীন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের নুরপাড়ার বাসিন্দা। আদি নিবাস পেকুয়া উপজেলায় হলেও কক্সবাজার পৌরসভাতেই স্বপরিবারে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন।

ডাঃ মুহাম্মদ আমীন এলাকার সর্বজন শ্রদ্ধেয় মুরব্বি হিসেবে পরিচিত। পেশাগত জীবনে তিনি একজন হোমিও চিকিৎসক। বয়সের কাঁটা ৬০ পেরোলেও চালচলন, কর্মকা- অনেকটা তরুণ-যুবকের মতো। বংশীয় মর্যাদাও বেশ উন্নত ডা. আমীনের। এলাকায় বেশ সুনাম রয়েছে আচার-আচরণে সদালাপি এই মানুষটির।

ডাঃ মুহাম্মদ আমীনের বাবা মৃত মাওলানা ছৈয়দ আহমদ একজন প্রসিদ্ধ আলেমেদ্বীন ছিলেন। মা মৃত গোলচম্পা বেগমও একজন গুণবতি নারী হিসেবে সমাজের প্রায় মানুষের কাছে পরিচিত ছিলেন। মা-বাবার গুণেই গুণান্বিত হন ছেলে আমীন।

শিক্ষাগত যোগ্যতা
ডাঃ মুহাম্মদ আমীন পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের ফাঁসিয়াখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাইমারী সার্টিফিকেট পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। পেকুয়া জি.এম.সি ইনষ্টিটিউট থেকে ১৯৭১ সালে এসএসসি পাসের পর কক্সবাজার সরকারি কলেজ থেকে ১৯৭৪ সালে এইচএসসি পাস করেন। ১৯৮০ সালে কক্সবাজার পিটিআই এবং ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক বোর্ড, ঢাকা থেকে হোমিওপ্যাথিক ডিগ্রী অর্জন করেন।

১৯৫৫ সনের ৯ জানুয়ারি তার জন্ম।

পারিবারিক অবস্থান
কক্সবাজার জেলার বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন মরহুম মাওলানা ছৈয়দ আহমদের ২য় সন্তান ডাঃ মুহাম্মদ আমীন। নিজের সংসারে দুই ছেলে ও চার মেয়ে সন্তান রয়েছে। বড় ছেলে মোবারক হেসেন বিএ পাস এবং ছোট ছেলে আব্দুল হামিদ মোরশেদ এইচএসসি পাস। বর্তমানে উভয় ছেলে ব্যবসার সাথে জড়িত।

ডাঃ মুহাম্মদ আমীনরা ৪ ভাই ও ছয় বোন।

পরিবারের সবার বড় ভাই আশরাফ আলী। বয়স ৭৮ বছর হলেও থেমে নেই। ১৯৬১ সনে চট্টগ্রামের বাশঁখালী পুইছড়ি মাদ্রাসা থেকে ফাজিল (বর্তমান ডিগ্রি সমমান) পাস করেন। শিক্ষকতা করেন পেকুয়ার রাজাখালী ফয়জুননিছা মাদ্রাসা ও শিলখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে। জড়িত রয়েছেন সমাজসেবামূলক কর্মকা-ে। যে কোন মানুষের দুঃখ-যন্ত্রণার কথা শুনলেই ছুটে যান তিনি। তিনি একজন গর্বিত বাবা, সফল ভাই।

আরেক ভাই রুহুল আমিন একজন আদর্শ শিক্ষক। তৎকালীন সময়ে তিনি বিকম বিএড পাস। ১৯৬৬ থেকে ১৯৬৯ সন পর্যন্ত পেকুয়া জি.এম.সি. ইনস্টিটিউট, ১৯৭৮ সনে শিলখালী উচ্চ বিদ্যালয়, ১৯৮৪ সনে রাজাখালী এয়ার আলী খাঁন উচ্চ বিদ্যালয়, ১৯৮৫ হতে ২০০০ সনে পুণরায় পেকুয়া জিএমসি ইনস্টিটিউট এবং সর্বশেষ ২০০০ হতে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বারবাকিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন রুহুল আমিন।

রাজনৈতিক অবস্থান
ডাঃ মুহাম্মদ আমীন ছাত্র জীবনেই বিভিন্ন সংগঠনে যুক্ত ছিলেন। ১৯৬৯ সনে পেকুয়া জি.এম.সি ইনষ্টিটিউটের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত জিএস ছিলেন।
১৯৮৯ থেকে বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির কক্সাজার জেলার দায়িত্বে আছেন। দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে তিনি এ দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।
২০১৩-২০১৪ সালে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কক্সবাজার জেলার সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

জাতীয় শিক্ষক ফোরাম কক্সবাজার জেলার প্রতিষ্ঠাকালীন আহবায়ক ও বর্তমানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কক্সবাজার জেলার উপদেষ্টা এবং জাতীয় শিক্ষক ফোরাম কক্সবাজার জেলার নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্বরত আছেন।

কর্ম জীবন
এইচএসসি পাসের পরের বছর ১৯৭৫ সালেই ডাঃ মুহাম্মদ আমীন কক্সবাজার পৌর-প্রিপ্যার‌্যাটরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৭৯ সন থেকে দীর্ঘ ২১ বছর কক্সবাজার পেশকার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। ১৯৯৯ সালে কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও ওয়াহেদার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। সেখানে প্রায় ৫ বছর শিক্ষকতায় ছিলেন। ২০০৩ সাল থেকে ইসলামপুর হাজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। সর্বশেষ বাংলাবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে অবসর নেন।

সামাজিক অবস্থান
দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে কক্সবাজার এন্ডারসন রোড়স্থ নূর পাড়ার সমাজ কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি কক্সবাজার অসমাজিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটি ও এন্ডারসন রোড ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির বর্তমান সভাপতি। পাশাপাশি কক্সবাজার ফায়ার সার্ভিস জামে মসজিদের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন।