টেকনাফে ইয়াবা পাচারে সহযোগীতা ও বহনের দায়ে ১৫ জনকে সাজা 

ইয়াবার বড় চালান ধরা পড়লেও ব্যবসায়ীরা কোথায়?yaba

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে মাদক কারবারী ও সেবনকারীদের নির্মুল করতে চলছে সাঁড়াশী অভিযান। টেকনাফ সীমান্ত প্রহরী ২ বিজিবি সদস্যরা ২৯ জুন গভীর রাত থেকে ১ জুলাই সন্ধ্যা পর্যন্ত মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে মাদক বহন ও কারবারীদের সহযোগীতা হিসাবে চিহ্নিত ১৫ জন ব্যাক্তিকে আটক করেছে। এর মধ্যে ৩ জন হচ্ছেন ঢাকা ও টাঙ্গাইল এলাকার।
টেকনাফ ২ বিজিবি সুত্রে জানায়, বিজিবি সদস্যরা গত ২৯ জুন গভীর রাত থেকে ১ জুলাই সন্ধা পর্যন্ত সীমান্তের বিভিন্ন এলাকায় পৃথক পৃথক অভিযান পরিচালনা করে।
উক্ত অভিযানে কোন মাদক উদ্ধার করতে না পারলেও মাদক কারবারীদের সহযোগীতা এবং মাদক বহনকারী হিসাবে চিহ্নিত ১৫ জন অপরাধীকে আটক করতে সক্ষম হয়। এরপর উক্ত অপরাধে জড়িত থাকার প্রমান পাওয়ায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (ভুমি) প্রনয় চাকমা ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রধান করে।
ধৃতরা হলেন,মোঃ মনছুর (৩২),মোঃ হোসেন(৩৫)হেলাল উদ্দিন(১৯),মোঃ সাগর(২৬),নুরুল আমিন(২৫),মোঃ শাহিন(৩০),লালু মিয়া(৩২),মোঃ বাবুল মিয়া(২৪),মোঃ মিন্টু(৩৮),কবির আহাম্মদ(১৯),মোঃ আব্দুল হামিদ(৩০)মোঃ জিয়াফত উল্লাহ(৩০),নুর আহাম্মদ(৩৭),মোঃ জানে আলম(৬০) আবু তাহের(৩২)।
সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ ২ বিজিবি লেঃ কর্নেল আছাদুদ জামান বলেন সীমান্ত এলাকা থেকে মাদক পাচার প্রতিরোধ এবং মাদক কারবারী ও মাদক সেবীদের আইনের আওতাই নিয়ে আসতে বিজিবি সদস্যদের মাদক বিরুধী চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে। তিনি আরো বলেন মাদক কারবারে জড়িত মুলহোতাদেরকেও আইনের কবলে নিয়ে আসার জন্য বিজিবি সদস্যরা সদা প্রস্তুত রয়েছে।