৩০ বছর মায়ের লাশের সঙ্গে বসবাস!

পৃথিবীতে মানুষের সবচেয়ে আপনজন মা। মায়ের সঙ্গেই থাকে সবার নাড়ীর সম্পর্ক। কিন্তু মৃত্যু মা আর সন্তানের সম্পর্কে ছেদ এনে দেয়। এটাই চরম সত্য। তবে মায়ের মৃত্যুর পর এই সম্পর্কচ্ছেদ মেনে নিতে পারেননি ইউক্রেনের এক নারী। তাই মায়ের মৃতদেহ মমি করে নিজের সঙ্গে রেখে দিয়েছেন পুরো ৩০ বছর!
সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়, সম্প্রতি ইউক্রেনের একটি বাসা থেকে ৭৭ বছর বয়সী এক নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি তার মায়ের মৃতদেহ মমি করে ৩০ বছর নিজের সঙ্গে রেখেছেন।

ডেইলি মেইল জানায়, প্রতিবেশীদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ইউক্রেনের মাইকোলেইভ ওই বাসা থেকে সোফায় শোয়ানো অবস্থায় মায়ের মমি উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহটি কাগজের স্তপের একটি ঘরের মধ্যে রাখা ছিল।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মরদেহটির মাথাসহ পুরো শরীর সাদা পোশাক পরানো ছিল। তার পায়ে ছিল সবুজ মোজা ও নীল জুতা। মেঝেতে পড়ে থাকা অবস্থায় তার মেয়েকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। ওই নারীর দুই পা পক্ষাঘাতগ্রস্ত ছিল। ওই বাসায় পানি, গ্যাস বা বিদ্যুৎ সংযোগও ছিল না।
পুলিশ জানায়, বৃদ্ধা ওই নারী সরকারি ভাতা পেতেন। বাসায় তিনি একাই বসবাস করতেন। প্রতিবেশীদের সঙ্গেও তার কোনো যোগাযোগ ছিল না। এমনকি তিনি কখনও দরজা খুলতেন না।
প্রতিবেশীরাই তাকে দেখভাল করতেন ও খাবার দিতেন। তবে এতোদিনে কেউ ধরতে পারেননি তিনি মায়ের লাশের সঙ্গে বসবসাস করছেন।
পুলিশ ওই মমি করা লাশটি উদ্ধার করে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞদের কাছে পাঠিয়েছে। এ ছাড়া ওই নারীকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!