প্রেমের বিয়ে

টেকনাফে তিনমাসেই লাশ হলো নববধূ

প্রেমের বিয়ে

প্রেমের বিয়ে

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে প্রেম করে বিয়ে করার ৩ মাসের মধ্যেই স্বামীর বাড়িতে লাশ হলেন নববধূ তসলিমা। ওই ঘটনায় তসলিমার বাবার মামলার কারণে পুলিশ স্বামীকে আটক করলেও সন্দেহভাজন শ্বশুর পলাতক রয়েছেন।

জানা যায়, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী ভোর রাত ৪টার দিকে উপজেলার হোয়াইক্যং খারাইগ্যাঘোনার আলী আকবরের ছেলে নুরুল বশর ওরফে ভাইয়ার (২৫) স্ত্রী হ্নীলা জাদিমোরাস্থ নয়াপাড়ার জালাল আহমদের মেয়ে তসলিমা আক্তারের (১৮) মৃতদেহ পাওয়া যায়। তাকে গোপনে হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উখিয়া থানা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ স্বামীকে আটকে রাখেন। পরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ স্থানীয় গোরস্থানে দাফন করা হয়।

এই ঘটনায় নিহত তসলিমার বাবা বাদী হয়ে টেকনাফ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহির উদ্দিন খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং স্বামীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক স্বামী বিভিন্ন ধরনের উলটা-পাল্টা তথ্য দেয়ায় সন্দেহ আরো বাড়ছে।

এ ব্যাপারে নিহত তসলিমার বাবার সাথে কথা বলতে চাইলেও মুঠোফোন বন্ধ থাকায় কোন ধরনের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

অপরদিকে নিহত তসলিমার মামা কালা মিয়া ওরফে কালা ভাই বলেন, ‘তারা উভয়ে আমার আত্মীয়। মেয়ে বেড়াতে আসার সুযোগে তাদের মধ্যে সম্পর্কের মাধ্যমে বিয়ে হয়। কিন্তু ছেলের বাবা মেয়ে না নিয়ে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার আশ্রয় নিয়েছেন।’

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান, আটক স্বামীকে সংশ্লিষ্ট মামলায় আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, তসলিমা বিয়ের আগে মামার বাড়িতে (নাইয়্যুর) দাওয়াত উপলক্ষে বেড়াতে গিয়েই নুরুল বশরের সাথে পরিচয়ের সুত্র ধরে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। ছেলে নুরুল বশর বাবার অবাধ্য হয়েই তসলিমাকে বিয়ে করেন। এই কারণে বাবাসহ পরিবারের অন্যরা তসলিমা ও বশরকে মেনে নেননি। তাই তাদের সংসারে প্রায় সময় ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত।

সূত্র মতে, ২৫ ফেব্রুয়ারী ঘটনার দিন সকালে নুরুল বশর ও তার বাবা আলী আকবরের মধ্যে পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। এরপর নুরুল বশর রাতে নাফনদীর ওই পারের প্রজেক্টে মাছ শিকারে যান। ভোরে এসে স্ত্রীর এই অবস্থা দেখে এক সহযোগী নিয়ে হাসপাতালে দেখতে গিয়েই সন্দেহভাজন হিসেবে আটক হন।

এই ঘটনার পরপরই শ্বশুর আলী আকবরসহ পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!