আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারীর সাজার মেয়াদ বাড়ল

আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারীর সাজার মেয়াদ বাড়ল

আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারীর সাজার মেয়াদ বাড়ল
বিদ্যমান আইনের সংশোধনের প্রস্তাব করে সংসদে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুত বিচার) (সংশোধন) বিল, ২০১৮ পাস করা হয়েছে। এতে অপরাধীর সাজার মেয়াদ পাঁচ বছর থেকে সাত বছর করা হয়েছে।

আজ রোববার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন।

বিলে বিদ্যমান আইনের ধারা ৪-এর উপধারা (১)-এ উল্লিখিত পাঁচ বছরের পরিবর্তে সাত বছর শব্দগুলো প্রতিস্থাপন করায় সাজার মেয়াদ পাঁচ বছর থেকে বৃদ্ধি করে সাত বছর করা হলো।

এ ছাড়া বিলে বিদ্যমান আইনের ধারা ৮-এর উপধারা (২)-এ উল্লিখিত সরকার বিশেষভাবে ক্ষমতাপ্রাপ্ত একজন প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেটকে উক্ত আদালতের বিচারক নিযুক্ত করবে শীর্ষক নতুন (২) উপধারা প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির বেগম রওশন আরা মান্নান ও নূরুল ইসলাম ওমর বিলের ওপর জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব করলে তা কণ্ঠ ভোটে নাকচ হয়ে যায়।

মহান বিজয় দিবস রাজারবাগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির শ্রদ্ধা নিবেদন

রাজারবাগ পুলিশ লাইনে শহীদ পুলিশ স্মৃতিস্তম্ভে প্রথমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পুলিশ সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এর পর পুলিশ পরিবারের পক্ষ থেকে আইজিপি সশস্ত্র সালাম প্রদর্শন করেন। এ সময় বিউগলের করুণ সুর বেজে ওঠে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির পর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, র্যা বের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সারা দেশে উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে মহান বিজয় দিবস।

দিবসটি উপলক্ষে এর আগে আজ সকাল সাড়ে ৯টায় রাজধানীর সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো.আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ ছাড়া ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সকালে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পর্যায়ক্রমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। পরে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ও বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এ ছাড়া শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে জাতীয় স্মৃতিসৌধে সর্বস্তরের মানুষের ঢল নেমেছে। শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি স্মরণ করছে তার বীর সন্তানদের।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃতে নয় মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এই দিনে বিকেলে রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে) হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। সেই থেকে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালিত হয়ে আসছে। এবার বিজয়ের ৪৬তম বার্ষিকী।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!