গর্ভপাতের অনুমতি পেল সেই ধর্ষিত শিশু

গর্ভপাতের অনুমতি পেল সেই ধর্ষিত শিশু

গর্ভপাতের অনুমতি পেল সেই ধর্ষিত শিশু

ভারতের হরিয়ানায় ধর্ষণের শিকার ১০ বছরে শিশুর গর্ভপাতের অনুমতি দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বিবিসি জানায়, হরিয়ানা রাজ্যের রোহতাক শহরের বাসিন্দা ওই শিশুটিকে তার সৎবাবা বেশ কয়েকবার ধর্ষণ করার পর সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

প্রায় পাঁচমাসের অন্তঃসত্ত্বা শিশুটিকে গর্ভপাত করানোর জন্য চিকিৎসকদের কাছে নিয়ে যান তার মা।

ভারতের আইনে ২০ সপ্তাহ পার হয়ে যাওয়ার পর গর্ভপাত নিষিদ্ধ। দেশটির সমাজ ব্যবস্থায় লিঙ্গ বৈষম্য খুব বেশি। সেখানে মেয়ে সন্তানের তুলনায় ছেলে সন্তান অধিক কাম্য হওয়ায় গর্ভেই কন্যাভ্রূণ হত্যার হার অনেক বেশি।

এই প্রবণতার বিরুদ্ধে লড়াই করতে দেশটিতে গর্ভপাত আইন বেশ কঠোর। যে কারণে স্থানীয় আদালত রোহতাক শহরের পোস্ট-গ্রাজুয়েট ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স (পিজিআইএমএস) হাসপাতালের চিকিৎসকদের শিশুটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব দেয়।

এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সোমবার পিজিআইএমএস চিকিৎসকদের একটি প্যানেল বৈঠকে বসেছিল।

বৈঠক শেষে প্যানেলের চিকিৎসক ডা. অশোক চৌহান বিবিসি’কে বলেন, “যে কোনও সময় শিশুটির গর্ভপাত করা হবে।”

“শিশুটি হয়ত ২০ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। তবে সংখ্যাটি ১৯ হতে পারে বা ২১ হতে পারে। আর আমাদের প্রযুক্তি এখনও এতটা উন্নত হয়নি যে একেবারে সঠিক সময় বলতে পারে।”

শিশুটির মা একজন গৃহকর্মী। মেয়ে গর্ভবতী এমন সন্দেহে গত সপ্তাহে তিনি মেয়েকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

গণমাধ্যমে এই খবর প্রকাশ পাওয়ার পর দেশজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও নিন্দার ঝড় উঠেছে।

বিবিসি জানায়, গত কয়েকমাসে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে বেশ কয়েকটি মামলা হয়েছে। সেগুলোতে কয়েকজন নারী ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর গর্ভধারণ করেছেন এবং ২০ সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও গর্ভপাতের অনুমতি চেয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্ট থেকে এ ধরনের মামলাগুলো সবসময়ই চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের কাছে পাঠানো হয়। রোহতাকের এ ঘটনায় শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে চিকিৎসকদের কাছে গর্ভপাতের অনুমতি দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছিল।