চীনের সঙ্গে চুক্তি করল নেপালও, একঘরে ভারত

চীনের সঙ্গে চুক্তি করল নেপালও, একঘরে ভারত

চীনের সঙ্গে চুক্তি করল নেপালও, একঘরে ভারত

চীনের অর্থনৈতিক প্রকল্প- ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড, চুক্তি স্বাক্ষর করল নেপালও। এর ফলে দক্ষিণ এশিয়ায় শুধু ভারতই একমাত্র দেশ রয়ে গেল, যে চীনের এই চুক্তিতে এখনো স্বাক্ষর করেনি।

চীনের কূটনীতিকদের মতে, এবার হয় ভারতকে বাধ্য হয়েই এই চুক্তি স্বাক্ষর করতে হবে, নয়ত একঘরে হতে হবে।

শুক্রবার কাঠমাণ্ডুতে নেপালের পররাষ্ট্রসচিব শঙ্করদাস বৈরাগী এবং চীনের রাষ্ট্রদূত ইউ হং এ ব্যাপারে একটি সমঝোতা স্মারক (এমও) স্বাক্ষর করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন নেপালের উপ প্রধানমন্ত্রী কৃষ্ণবাহাদুর মাহারা এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রকাশশরণ মাহাতো।

নেপাল সরকার বলছে, এর ফলে দেশে নতুন করে চীনা বিনিয়োগের রাস্তা খুলে যাবে। বাণিজ্যে ঘাটতিও কমবে। চুক্তি স্বাক্ষরের পরই দুদিনব্যাপী বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরামে অংশ নিতে বেইজিং রওনা দেন উপ প্রধানমন্ত্রী কৃষ্ণবাহাদুর মাহারা।

চীনের সঙ্গে চুক্তি করল নেপালও, একঘরে ভারত

বেইজিং পৌঁছেছেন পাকিস্তান, মায়ানমার, শ্রীলঙ্কা, মলদ্বীপ, এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধানরাও। ভারত এখনো ফোরামে যোগ দেওয়া নিয়ে কিছু পরিষ্কার না করলেও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্রের দাবি, ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা যোগ দিয়েছেন।

চীনের সঙ্গে নেপালের এই চুক্তির ফলে আন্তঃরাষ্ট্রীয় রেল, সড়ক, বন্দর ও বিমান পরিষেবা, পাওয়ার ট্রান্সমিশন গ্রিড, পার্ক, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি সহজ হবে বলে জানিয়েছে দুই দেশ। অর্থ জোগাবে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্ক বা এআইআইবি এবং সিল্ক রোড ফান্ড।

চীন এবং পাকিস্তানের মধ্যে ইকনমিক করিডোরে চীনের তৎপরতায় সার্বভৌমত্ব প্রসঙ্গে উদ্বিগ্ন ভারত। সেজন্যই দিল্লি এ নিয়ে সতর্ক। যদিও নেপাল–চীন চুক্তির সুফল ভারতের উত্তরের রাজ্যগুলোও পাবে বলে জানিয়েছেন চীনের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ডিরেক্টর হু শিশেং। তার আশা, এর ফলে একসময় ভারতও এই চুক্তিতে যোগ দেবে।