শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার দুইদিন পর স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন

গর্ভবতী গৃহবধূ হত্যা, স্বামী আটক

গর্ভবতী গৃহবধূ হত্যা, স্বামী আটক

কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে তসলিমা আক্তার (২০) নামের এক গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৯ মে) বেলা ১২টার দিকে মহেশখালী উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের জামাল পাড়া থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

ওদিকে ঘটনার পর থেকে তসলিমার স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির সবাই পলাতক রয়েছেন।

নিহত তসলিমা আক্তার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মধ্যম ফকিরা ঘোনা গ্রামের আবু ছৈয়দের মেয়ে। তাসলিমার সাথে ৬ মাস আগে হোয়ানক ইউনিয়নের জামাল পাড়ার আব্দুল খালেকের ছেলে আলী হোসেনের বিয়ে হয়।

নিহতের মা জান্নাত বেগম সাংবাদিকদের জানান, বিয়ের পর মেয়ে জামাই আলী হোসেন তসলিমার দুইভরি স্বর্ণালংকার বিক্রির চেষ্টা করে। ওইনিয়ে দু’জনের মনোমালিন্য চলে আসছিল। তারই জের ধরে মারধর করায় ১০ দিন আগে তসলিমাকে বাপের বাড়িতে নিয়ে
আসা হয়।

তিনি জানান, ৮ মে সোমবার রাতে শ্বশুর আব্দুল খালেক স্থানীয় সাবেক মেম্বার আব্দুল কবিরকে নিয়ে তাদের বাড়িতে এসে মেম্বারের জিম্মায় তসলিমাকে নিয়ে যায়। এরপর আজ তাদের মেয়ের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ সাংবাদিকদের জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি জানান, নিহতের নাকে, মুখে ও গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে স্বামীর হাতেই তসলিমা
খুন হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্বামীসহ অন্যদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালছে বলেও জানান তিনি।