লামায় গৃহবধূর গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা

মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

পার্বত্য বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নে নিজ বাড়িতে আলিফা বেগম (২৮) নামের এক মহিলা গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্নহত্যা করেছেন।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পাশের বাড়ির এক মহিলা ও নিহতের স্বামী এই ঘটনা দেখে প্রতিবেশীদের জানান। পরে এলাকার মানুষ পুলিশকে খবর দিলে ফাইতং পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ কানন চৌধুরী বাড়িতে এসে তার লাশ উদ্ধার করেন। সুরতহাল শেষে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহত নারী লামা উপজেলার ফাইতং খেদারবান পাড়া এলাকার মোঃ মোশারফ হোসেনের মেয়ে।

নিহতের স্বামী মোঃ ফারুক বলেন, আমি কাজে গিয়েছিলাম, ওখান থেকে রাত ৩টায় বাড়িতে এসে আলাদা রুমে ঘুমিয়ে পড়ি। সকালে আমার নানি শাশুড়ী কান্নাকাটি করলে আমি ঘুম থেকে উঠে দেখি- আমার স্ত্রী রশিতে ঝোলানো। পরে আমিসহ পাশের এক মহিলা রশি কেটে নামাই।

তিনি বলেন, আমার সাথে কোনো রকম ঝগড়া ঝাটি হয়নি, গলায় ফাঁস দিয়ে কেন আত্নহত্যা করলো- বুঝতে পারছি না।

নিহত গৃহবধূর মা ফিরোজা পারভিন বলেন, আমি সকালে চকরিয়া উপজেলার হারবাংয়ে জন্ডিসের ওষুধ দেয়ার জন্য যাই, আমাকে সাড়ে ১০টার দিকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একজন মোবাইলে মেয়ের আত্নহত্যা বিষয়টি জানান। আমি বাড়িতে এসে আমার মেয়ের লাশ দেখি।

নিহতের মাও আত্মহত্যার কোন কারণ জানে না বলে জানান।

ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ এইচ এম আহসান উল্লাহ ও ইউপি মহিলা সদস্য সাহেদা ইয়াসমিন বলেন, খবর পেয়ে আমরা সকলে এসে বেঁচে আছে কিনা তা দেখার জন্য চাই, গলার রশি কেটে লাশ বিছানায় দেখতে পাই।

গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার বিষয়টি ফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ কানন চৌধুরীর মাধ্যমে নিশ্চিত করে লামা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান (মিজান) বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!