রামুতে ৮ পুরুষ প্রার্থীকে হারিয়ে ‘নৌকা’র জয় আনলেন রীনা

রামুতে ৮ পুরুষ প্রার্থীকে হারিয়ে ‘নৌকা’র জয় আনলেন রীনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

দেশের দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ৮ পুরুষ প্রার্থীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ভোটযুদ্ধে জয়ী হয়েছেন কক্সবাজারের কাছের উপজেলা রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী খোদেস্তা বেগম রীনা।

নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বেসরকারি ভাবে তিনি বিজয়ী হয়েছেন।

খোদেস্তা বেগম রীনার জয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গৌর চন্দ্র দে।

তিনি জানান, এই ইউনিয়নের ১৬ হাজার ১২৮ জন ভোটারের মধ্যে ১৩ হাজার ২৯২ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এদের মধ্যে ২৯০ জনের ভোট বাতিল হয়।

ভোটগ্রহণ শেষে নৌকা প্রতীক নিয়ে খোদেস্তা বেগম রীনা ৫ হাজার ৯১৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ও বর্তমান চেয়ারম্যান টেবিল ফ্যান প্রতীকে মো. ইউনুছ পেয়েছেন ৩ হাজার ৪৩৫ ভোট, ঘোড়া প্রতীক নিয়ে মোহাম্মদ সাইফুল আলম পেয়েছেন ৩ হাজার ৭১ ভোট, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে মুহাম্মদ শফিউল্লাহ পেয়েছেন ২৫০ ভোট, টেলিফোন প্রতীক নিয়ে মো. সাইফুল ইসলাম পেয়েছেন ২১৭ ভোট, আনারস প্রতীক নিয়ে ইয়াসিন মনির সোহাদ পেয়েছেন ৪২ ভোট, মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে মুহাম্মদ ওমর ফারুক পেয়েছেন ৩০ ভোট, অটোরিকশা প্রতীক নিয়ে সাদ আল আলম চৌধুরী পেয়েছেন ২৮ ভোট এবং চশমা প্রতীক নিয়ে এয়াকুব পেয়েছেন ১৪ ভোট।

খোদেস্তা বেগম রীনা সাংবাদিকদের বলেন, ‘একজন নারী প্রার্থী হয়ে আমি আট প্রতিদ্বন্দ্বি পুরুষ প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হয়েছি। এটা আমার জীবনের বড় অভিজ্ঞতা হয়ে থাকবে’।

তিনি বলেন, আমার জনগণ যেভাবে ভালোবেসে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছেন তাদের কথা আজীবন মনে রাখবো। দলের নেতাকর্মীসহ যারা আমার জন্য রাতদিন পরিশ্রম করে কাজ করেছেন তাদের কাছে আমি চিরঋণী হয়ে গেলাম। সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। তাদের সুখে, দুঃখে সবসময় থাকবো আমি।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের নির্বাচিত অনুষ্ঠিত হয়। রাতে নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা করলে জয়ী হন খোদেস্তা বেগম।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!