ফলোআপ

প্রবাসী মনজুরকে যে কারণে মরতে হলো স্ত্রী-শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে

প্রবাসী মনজুরকে যে কারণে মরতে হলো স্ত্রী-শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে

আনছার হোসেনআনোয়ার হোছাইন ঈদগাঁও
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজার সদর উপজেলাধীন ঈদগাঁওতে প্রবাসে ঘাম ঝরানো আয়ের টাকায় নির্মিত বহুতল বাড়ির অধিকার চাইতে গিয়ে প্রকাশ্য দিবালোকে পৈশাচিক কায়দায় স্ত্রী ও শ্বশুর পক্ষের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছে প্রবাসী মনজুর আলম অবশেষে দিন-রাত মৃত্যু যন্ত্রণায় ভোগে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা গেছেন।

আজ শনিবার (২২ মে) বেলা ১২টার দিকে তাকে বহনকারি এ্যাম্বুলেন্সটি চকরিয়া পৌঁছলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মনজুর আলম।

তার এই নির্মম মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় পৌঁছলে স্বজন ও এলাকাবাসির মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তারা অবিলম্বে এই ঘটনায় ধৃত খুনি স্ত্রী ও শ্বশুর পক্ষের যে সকল ঘাতক খুনের ঘটনায় জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে ফাঁসি দাবি তুলেছেন।

এলাকাবাসির মতে, লোভী স্ত্রী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের লোভের কারণেই নিজের ঘামে ঝরানো টাকায় গড়া বহুতল ভবনের মালিকানা চাইলে গিয়ে খুন হতো হলো প্রবাসী মনজুর আলমকে।

তারা মনে করেন, মনজুর আলমের এই ঘটনা প্রবাসে থাকা কক্সবাজারের অধিবাসীদের দেশে থাকা স্ত্রীদের উপর বিশ্বাস রাখা কষ্টকর হয়ে পড়বে। এমনকি স্ত্রীকে কিংবা স্ত্রীর নামে টাকা পাঠাতেও তারা হয়তো একশবার চিন্তা করবেন।

যে কারণে প্রবাসী স্বামীকে খুন করলো স্ত্রী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন
কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের নতুন মহাল গ্রামের মৃত আব্দুল গনির ছেলে মঞ্জুর আলম (৪৫) দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে প্রবাসে ছিলেন। প্রবাস জীবনে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে যা আয় করেছেন, তা বাংলাদেশে অবস্থানরত তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী রুনা আক্তারের কাছে পাঠাতেন। স্ত্রী ওই টাকা দিয়ে নিজের নামে বাবার বাড়ির এলাকায় জমি কিনে গড়ে তুলেছেন বহুতল ভবন। সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতির ছুটিতে স্বামী মঞ্জুর আলম দেশে ফিরেন। এরই মধ্যে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে পারিবারিক কলহ দেখা দেয়। স্বামীর সাথে দূরত্ব বৃদ্ধি পেতে থাকে স্ত্রী রুনার।

তারই জের ধরে শুক্রবার (২১ মে) সকালে ঈদগাঁও ইউনিয়নের উত্তর মাইজপাড়ায় নিজের পাঠানো টাকায় নির্মিত বহুতল ভবনের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে গেলে স্ত্রী ও শ্বশুরপক্ষের সকলে মিলে প্রকাশ্যে দিবালোকে মনজুর আলমকে মারতে মারতে ঘর থেকে বের করে দেয়। এমনকি ঘরের সামনে গ্রামের রাস্তায় ফেলে ‘সাপ মারার মতো’ মধ্যযুগীয় কায়দায় মারতে থাকে।

এই দৃশ্য এলাকার লোকজন ভিডিওধারণ করে ফেসবুকে পোস্ট দিলে মুহুর্তে তা ভাইরাল হয়ে পড়ে। যা পুলিশ প্রশাসনের নজরে আসলে জেলা পুলিশের নির্দেশে ঈদগাঁও থানা পুলিশের একটি চৌকস দল ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল হালিমের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতিকালে মঞ্জুর আলমের স্ত্রী রুনা আকতার ও শ্বশুরপক্ষের ৮ জন নারী-পুরুষকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। তবে হলুদ গেঞ্জিপরা মারধরের নেতৃত্ব দেয়া অপরাধীকে এখনও আটক করতে পারেনি পুলিশ।

আহত প্রবাসী মনজুর আলমকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পরদিন শনিবার সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে বেলা ১২টার দিকে তার মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন ঘটনাস্থল এলাকার এক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক মামুনুর রশিদ।।

এদিকে দিনদুপুরে নিজ স্ত্রী-শ্বশুর বাড়ির লোকজন প্রবাসী স্বামীর উপর এই পৈশাচিক নির্যাতনের ঘটনা জেনে প্রবাসী অধ্যুষিত ঈদগাঁও এলাকার প্রবাসী পরিবার গুলোতে এক ধরণের অজানা আতঙ্ক নেমে এসেছে। এলাকার সাধারণ মানুষ এই ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেছেন।

ঈদগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল হালিম জানান, নিষ্ঠুর এই ঘটনায় জড়িত স্ত্রী-শ্বশুর পক্ষের অধিকাংশ পুরুষ-নারীকে আটক করা হয়েছে এবং অন্যদের আটক করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

অপরদিকে একই এলাকার ব্যবসায়ী নুরুল হুদা জানান, নিহত মনজুর আলম প্রবাসে তার প্রথম স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে থাকেন। করোনার ছুটিতে তাদের প্রবাসে রেখে দেশে প্রথম স্ত্রীর নিকট আসেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর সংসারেও এক কন্যা সন্তান রয়েছে তার।

তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, যেভাবে তাকে প্রকাশ্যে রাস্তায় দীর্ঘ সময় মারা হয়েছে, এলাকার লোকজন নিরব দর্শকের ভুমিকা পালন না করে তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসলে হয়তো মনজুর আলমকে বাঁচানো যেতো।

এলাকাবাসির মতে, লোভী স্ত্রী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের লোভের কারণেই নিজের ঘামে ঝরানো টাকায় গড়া বহুতল ভবনের মালিকানা চাইলে গিয়ে খুন হতো হলো প্রবাসী মনজুর আলমকে।

তারা মনে করেন, মনজুর আলমের এই ঘটনা প্রবাসে থাকা কক্সবাজারের অধিবাসীদের দেশে থাকা স্ত্রীদের উপর বিশ্বাস রাখা কষ্টকর হয়ে পড়বে। এমনকি স্ত্রীকে কিংবা স্ত্রীর নামে টাকা পাঠাতেও তারা হয়তো একশবার চিন্তা করবেন।

আরও পড়ুন : প্রবাসীকে নির্মমভাবে পেটানো সেই স্ত্রীসহ ৮ জন গ্রেপ্তার

স্ত্রী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে নির্মম পিটুনির শিকার প্রবাসি মনজুর মারা গেছেন

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!