‘তারা শুধু শিশুই ছিল’

‘তারা শুধু শিশুই ছিল’

বিশ্ব ডেস্ক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলের ১১ দিনের হামলায় কমপক্ষে ৬৭ ফিলিস্তিনি শিশু নিহত হয়েছে। এই সময় ফিলিস্তিনের ছোড়া রকেটে ইসরায়েলের দুই শিশু মারা যায়।

নিহত শিশুদের পরিবারের বরাতে জানানো হয়েছে, শিশু পরিচয়ের বাইরে অন্য পরিচয় হওয়ার আগেই পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছে তারা। কেউ চিকিৎসক, কেউ শিল্পী ও কেউবা দেশ পরিচালনার জন্য নেতৃত্ব দিতে চেয়েছিল। তবে সে স্বপ্ন পূরণের আগেই বোমা ও রকেট হামলায় চিরবিদায় নেয় তারা।

শুক্রবার নিউইয়র্ক টাইমস নিহত শিশুদের ছবি প্রকাশ করে ‘তারা শুধুই শিশু ছিল’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছেপেছে।

১০ বছরের মেয়েকে হারানো ট্যাক্সিচালক সাদ আসালিয়ি বলেন, ‘আল্লাহর ইচ্ছায় তার মৃত্যু হয়েছে বলে নিজেকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করছি।’

গাজায় নিহত শিশু হামাদা আল ইমোউর (১৩) বাবা আতিয়া আল ইমোউর বলেন, ‘ঈদের আগের দিন ১২ মে আমার ছেলে চাচাতো ভাই আম্মার আল ইমোউরের (১০) সঙ্গে চুল কাটাতে যায়। ফেরার সময় আমার চোখের সামনেই বাড়ির কাছে ইসরায়েলের বোমা হামলায় দুজনে মারা যায়।’

রমজান মাসের শেষ রাতে চাচাত ভাইকে স্যালুনে নিয়ে যায় মাহমুদ তোলবেহ (১২)। দোকানের দরজায় পা রাখতেই ইসরায়েলের ছোড়া একটি শেল তার মাথায় ও কাঁধে আঘাত হানে। দু’দিন পরে তার মৃত্যু হয়।

নিহত শিশু মাহমুদ তোলবেহর (১২) বাবা হামিদ তোলবেহ বলেন, ‘সে খুবই মেধাবী ছিল। বিজ্ঞান অনেক পছন্দ করত এবং সে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হতে চেয়েছিল। বাড়ির সব কাজে সে সাহায্য করত। আমাদের মেরুদণ্ড ছিল সে।’ তিনি বলেন, ‘তার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ছিল। তাকে কবর দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার স্বপ্নকেও কবর দেওয়া হয়েছে।’

ইয়াহিয়া খলিফার (১৩) বাবা মাজেন খলিফা বলেন, ‘ইয়াহিয়া সবার জন্য লাচ্ছি ও আইসক্রিম আনার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়। কিন্তু ইসরায়েলের বোমার আঘাতে তার মরদেহ ঘরে ফিরে আসে।’

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!