টেকনাফের হালিমা হত্যায় একজনের ৪০ বছর কারাদন্ড

হ্নীলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য, ২০ হাজার টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের হালিমা খাতুন (৫০) হত্যা মামলার শামসুল আলম নামে শামসুল আলম নামের এক ব্যক্তিকে ৪০ বছর সশ্রম কারাদন্ডের রায় দেয়া হয়েছে। দন্ডবিধির দু’টি ধারায় আলাদা আলাদা ভাবে এই রায় দেয়া হয়।

জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল গত বুধবার এই রায় দেন।

আদালতের দেয়া রায় মতে, দন্ডবিধির ৩০২ ধারায় অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ৩০ বৎসর সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ,অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদন্ড এবং দন্ডবিধির ৩২৬/৩০৭ ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদন্ডের রায় দেন ককসবাজার জজ আদালত।

কক্সবাজার আদালতের সরকারি কৌসুলী অ্যাড. দীপক শর্মা ধর জানান, টেকনাফ থানা পুলিশ ২০১৩ সালের ১১ ডিসেম্বর টেকনাফ থানার কুলাল পাড়া বর্তমান খোনকার পাড়া এলাকা থেকে দুপুর অনুমান ১২টা ৫০ মিনিটের সময় হালিমা খাতুনের (৫০) লাশ উদ্ধার করে। এরপর মৃত হালিমার খাতুনের স্বামী আবদুল গফুর টেকনাফ থানায় বাদী হয়ে মৃত জহির আহমদের ছেলে সামশুল আলমকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে টেকনাফ উপজেলার কোনারপাড়া গ্রামের আবদুল গফুরের স্ত্রী হালিমা খাতুন টেকনাফ খোনকার পাড়া বসবাস করতেন। ২ হাজার টাকার জের ধরে হালিমাকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!