চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেপ্তার আ.লীগ নেতা

চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেপ্তার আ.লীগ নেতা

শরীয়তপুর সদর উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন হাওলাদারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। চাঁদাবাজির মামলায় সোমবার (২৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শরীয়তপুর পৌরসভার আংগারিয়া বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য।

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাল খনন কাজে বাধা, পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি ও প্রকল্পের ব্যবস্থাপককে মারধরের অভিযোগ এনে এক ঠিকাদার গত ১৬ এপ্রিল তার বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। মামলায় চেয়ারম্যানের আরও তিন ভাইসহ ১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে।

শরীয়তপুরের পালং মডেল থানা সূত্র জানায়, শরীয়তপুর সদর উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়নের দাদপুর গ্রাম থেকে কাটাখালী পর্যন্ত খালের তিন কিলোমিটার খনন করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। শহীদ অ্যান্ড ব্রাদার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠান প্রকল্পের কাজটি বাস্তবায়ন করছে। খালের খনন কাজ শুরু করা হলে স্থানীয় বাসিন্দারা বাধা দেয়া শুরু করেন। তাদের সঙ্গে যুক্ত হন আংগারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। তিনি প্রকল্পের কাজ করতে বাধা দিয়ে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। গত ১০ এপ্রিল খাল খননের মাটি অপসারণ কাজে বাধা দেন। তখন তিনি প্রকল্পটির ব্যবস্থাপক মজিবর সরদার ও তার ভাই এমদাদ সরদারকে মারধর করেন।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মতিউর রহমান বলেন, খালটি খনন কাজ শুরু করার পর থেকেই ইউপি চেয়ারম্যান ও তার ভাইয়েরা চাঁদা দাবি করতে থাকেন। ওই খালের যা বরাদ্দ ছিল তাতে আমাদের লোকসান হবে। আমরা তাকে টাকা দিতে পারব না এমনটা জানালে তিনি লোকজন নিয়ে আমার ম্যানেজারকে মারধর করে তার কাছে থাকা দুই লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যান। তিনি আওয়ামী লীগ নেতা হওয়ায় কিছু বাড়তি প্রভাব দেখিয়েছেন। বাধ্য হয়ে থানায় মামলা দিতে হয়েছে।

পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, পাউবোর খাল খনন প্রকল্পের ঠিকাদারের কাছ থেকে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। ওই মামলার ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমে তাকে করাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!