খোঁজ মিলছে না সেই টুপির, পাল্টাপাল্টি যুক্তি দিচ্ছে পুলিশ-কারা কর্তৃপক্ষ

ফাঁসির আসামি রাকিবুলের মাথায় ‘আইএসের টুপি’!

আদালতের এজলাশ থেকে বের হওয়ার সময় ফাঁসি দণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গির মাথায় আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) প্রতীক সম্বলিত টুপি দেখা যায়। সেই টুপির রহস্য এখনও উন্মোচন হয়নি। উল্টো টুপিটিরই কোনো খোঁজ নেই এখন পুলিশ ও কারা কর্তৃপক্ষের কাছে।

তবে যে টুপি নিয়ে এত আলোচনা-সমালোচনা চলছে, জঙ্গিদের কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়ার পর সেই টুপির আর খোঁজ মেলেনি। এ বিষয়ে মুখও খোলেননি টুপি পরা জঙ্গি রিগ্যান। ফলে এ নিয়ে নতুন আরেকটা রহস্য তৈরি হয়েছে।

হলি আর্টিজানে হামলা মামলার রায়ের দিন বুধবার (২৭ নভেম্বর) পুলিশ ও কারা কর্তৃপক্ষ পৃথকভাবে তদন্ত শুরু করে। ইতিমধ্যে পুলিশ দাবি করেছে, আইএসের প্রতীক সম্বলিত কালো টুপি কারাগার থেকেই এক জঙ্গি আদালতে নিয়ে এসেছিলেন।

তবে পুলিশের ওই দাবির বিষয়ে পরিষ্কার কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি কারা কর্তৃপক্ষ। তারা বলছে, কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বুধবার ৮ জঙ্গিকে আদালতে নিতে প্রিজনভ্যানে তোলার সময় তাদের কারও মাথায় ওই বিশেষ টুপি ছিল না। শুধু কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় জঙ্গি মাহফুজুর রহমান ওরফে সোহেল মাহফুজের মাথায় একটি সাদা টুপি ছিল। ফলে কারাগারের বাইরে কোথা থেকে কিভাবে আইএসের প্রতীক সম্বলিত টুপিটি রিগ্যানের কাছে এলো, তা কারা কর্তৃপক্ষ জানে না। বাকিটা তদন্ত শেষেই খোলাসা হবে।

টুপি ইস্যুতে কারা কর্তৃপক্ষের তদন্ত কমিটির প্রধান ও কারা অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক কর্নেল আবরার হোসেন বলেন, কারাগার থেকে জঙ্গিদের আদালতে নেওয়ার সময় স্ক্যান করা হয়েছে, যাতে তারা অবৈধ কিছু বহন করতে না পারেন। জঙ্গিদের বের করার সময় তাদের মাথায় আইএসের পতাকা সম্বলিত টুপি ছিল না। শুধু একটি টুপি ছিল, সেটি সাদা।

তিনি বলেন, ঠিক একইভাবে রায়ের পর আইএসের প্রতীক সম্বলিত টুপি পরে তারা কারাগারে ফেরত আসেনি। সেটি কোথায় আছে, কিভাবে আছে সে বিষয়েও আমরা জানি না।

তবে পুলিশের তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে, আদালতের সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়। হাজতখানা থেকে এজলাশে তোলার সময় রিগ্যানের মাথায় একটি কালো টুপি ছিল। রায় শেষে রিগ্যানকে এজলাশ থেকে বের করার সময়ও তার মাথায় টুপিটি ছিল। তাই ধারণা করা হচ্ছে টুপিটি কারাগার থেকেই এনেছিলেন তিনি।

পুলিশের ওই সূত্র জানায়, প্রথমে রিগ্যান কালো টুপিটির উল্টা অংশ মাথায় দিয়ে এজলাশে প্রবেশ করেন। আর রায়ের পর এজলাশ থেকে বেরুনোর সময় তিনি টুপিটি উল্টিয়ে পরলে তাতে আইএসের চিহ্ন দেখা যায়। ওই একই টুপি প্রিজন ভ্যানে ওঠার পর রিগ্যানের কাছ থেকে নিয়ে জঙ্গি রাজীব গান্ধীও মাথায় দেন। পরে আদালত থেকে কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়ার সময় তারা টুপিটি পথেই কোথাও ফেলে দেন। অর্থাৎ একটি টুপিই দুই জঙ্গি পরেছিলেন।

অন্যদিকে এমন পরিস্থিতিতে কারা কর্তৃপক্ষ কী ভাবছে জানতে চাইলে কারা অধিদফতরের মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজনস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা বলেন, পুলিশ তদন্ত রিপোর্টে যা বলেছে, তা সঠিক হলে জঙ্গিদের প্রিজন ভ্যানে তোলার আগে পুলিশের তল্লাশিতে টুপি পেল না কেন?

তিনি বলেন, আমাদের প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ হয়নি। এ ঘটনায় যদি কারো দায়িত্বে অবহেলা থাকে আমরা তার বা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!