খালেদার শারিরিক অবস্থা খুব‌ই জটিল

ডেস্ক রিপোর্ট
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

রাজধানীর বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিংসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা জটিল হয়েছে বলে তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল টিম সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিকাল পৌনে পাঁচটায় এক জরুরি বৈঠকে বসে মেডিকেল টিম। সোয়া পাঁচটায় এই বৈঠক শেষ হয়। বৈঠকে ছিলেন মেডিকেল টিমের প্রধান অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদার, অধ্যাপক এফএম সিদ্দিকী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন ও ড. আল-মামুন।

এছাড়াও একটি বিশস্ত সূত্র জানিয়েছে, বুধবার (১৭ নভেম্বর) থেকে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা কিছুটা জটিল আকার ধারণ করেছে।

এর আগে দুপুরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া জীবন-মৃত্যুর সঙ্গে সংগ্রাম করছেন। তার চিকিৎসার ব্যাপারে এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা প্রাণপণ চেষ্টা করছেন। তিনি বিভিন্ন রকম অসুখে আক্রান্ত হয়েছেন। এই অসুখ এমন পর্যায় পৌঁছেছে যে, তাকে বাইরে চিকিৎসা করাটা এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, একথা ডাক্তাররাই বলছেন। বলছেন, তাকে বিদেশে পাঠালে তিনি সুস্থ হবেন।

গত ১২ নভেম্বর রাত থেকে অসুস্থ বোধ করায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে শনিবার (১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়।

এর আগে, গত ১২ অক্টোবর খালেদা জিয়াকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় হাসপাতালে চিকিৎসা নেন খালেদা জিয়া। এরপর গত ৭ নভম্বের হাসপাতাল ছেড়ে গুলশানে নিজ বাসা ফিরোজায় উঠেন তিনি।

খালেদা জিয়া বহু বছর ধরে আথ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, দাঁত ও চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন। এপ্রিলে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। নানা শারীরিক জটিলতায় ২৭ এপ্রিল খালেদা জিয়াকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৫৩ দিন চিকিৎসা শেষে ১৯ জুন বাসায় ফেরেন খালেদা জিয়া।

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে খালেদা জিয়া ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান। করোনা মহামারির প্রেক্ষাপটে গত বছরের ২৫ মার্চ সরকার শর্ত সাপেক্ষে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। এ পর্যন্ত তিন দফায় খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়।

বিএনপির নেতারা খালেদা জিয়ার শর্তসাপেক্ষে এ মুক্তিকে ‘গৃহবন্দি’ বলছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার আবেদন করা হলেও সরকার তা নাকচ করে দেয়। তাকে দেশে থেকেই চিকিৎসা নিতে হবে বলে শর্তও দেয়া হয়।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!