এড. ছালামতুল্লাহ আর নেই, জানাযা বাদে জোহর ঈদগাঁহ ময়দানে

এড. ছালামতুল্লাহ : ওনাকে যেমন পেয়েছি এবং দেখেছি ....

আনছার হোসেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে
কক্সবাজার ভিশন ডটকম

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সাবেক কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও সংগঠনটির কক্সবাজার জেলা শাখার সাবেক আমীর, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির বারবার নির্বাচিত সাবেক সভাপতি, মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা কক্সবাজার জেলা শাখার সাবেক সভাপতি ও কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এড‌ভোকেট ছালামতুল্লাহ আর নেই।

রোববার (৬ জুন) রাত ৮ টা ১০ মিনিটের দিকে চট্টগ্রা‌ম শহরের পার্কভিউ হাসপাতা‌লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

তিনি ৪ দিন আগে চট্টগ্রামের বাসায় হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে মাটিতে পড়ে যান। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তিনি সুস্থ হয়ে উঠলেও পরে তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি হয়। আজ রোববার তাঁকে চট্টগ্রাম শহরের বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্টান পার্কভিউ হাসপতালে ভর্তি করা হয়। ওখানেই তিনি রাত ৮টা ২০ মিনিটের দিকে সেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে পৃথিবী থেকে বিদায় নেন।

কক্সবাজারের অত্যন্ত সজ্জন ব্যক্তিত্ব এডভোকেট ছালামতুল্লাহর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাঁর ছোট ছেলে ও কক্সবাজার শহরের জামায়াতে ইসলামির সেক্রেটারি রিয়াজ মোহাম্মদ শাকিল।

তিনি জানান, আজ রোববার রাত সোয়া ৮টার দিকে তার বাবা পার্কভিউ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। আগামিকাল বাদে জোহর কক্সবাজার শহরের কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ ময়দানে তাঁর নামাজে জানাযা অনুষ্টিত হবে। জানাযা শেষে শহরের বাহারছড়া বড় কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হবে।

এদিকে মৃত্যুর পর পার্কভিউ হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে এডভোকেট ছালামতুল্লাহর মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ মসজিদে নিয়ে যাওয়া হয়। ওখানেই মরদেহের গোসল শেষে সংক্ষিপ্ত জানাযা পড়ানো হয়। জানাযা শেষে তাঁর মরদেহ নিয়ে এ্যাম্বুলেন্স কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে।

কক্সবাজারের প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও সুখ্যাত আইনজীবী এড. ছালামতুল্লাহ মৃত্যুকালে স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে, নাতি-নাতনি ও অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন। তাঁর তিন ছেলের মধ্যে বড় ছেলে শাহেদ সাদ উল্লাহ এক কবি ও আমেরিকা প্রবাসী, মেজো জাজি একজন আইনজীবী ও ছোট ছেলে রিয়াজ মো. শাকিল একজন ব্যবসায়ী ও রাজনীতিক।

এড. ছালামতুল্লাহ কক্সবাজার শহরের বাহারছড়ার প্রখ্যাত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁরা ৯ ভাই ও দুই বোনের মধ্যে এড. ছালামতুল্লাহ ছিলেন সবার বড়। এছাড়াও তাঁর এক ভাই জাফর আলম একজন প্রখ্যাত সাহিত্যিক ও অনুবাদক। আরেক ভাই ডা. মাহবুবুর রহমান একজন চিকিৎসক ও ইসলাম ধর্মের একজন প্রচারক।

অপরদিকে জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সাবেক সদস্য, কক্সবাজার জেলা শাখার সাবেক আমীর ও নায়েবে আমীর এডভোকেট ছালামতুল্লাহর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জামায়াতের ইসলামির বর্তমান জেলা আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা নূর আহমদ আনোয়ারী ও জেলা সেক্রেটারি এডভোকেট ফরিদ উদ্দিন ফারুকী।

এক শোক বার্তায় নেতাদ্বয় এতদাঞ্চলে ইসলামী শিক্ষা  ও  তাহজিব-তামাদ্দুন প্রচার ও প্রতিষ্ঠা এবং আইনাঙ্গনে মরহুমের অবদান গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

জেলা জামায়াতে ইসলামি নেতাদ্বয় মরহুমের যাবতীয় আমলে সালেহ’র উছিলায় জান্নাতুল ফিরদাউসে উচ্চ মাকামের জন্য মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি সমবেদনা জানান।

প্রসঙ্গত, মরহুম এডভোকেট ছালামতুল্লাহ কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতি, কক্সবাজার প্রেস ক্লাব ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সাবেক সভাপতি ছিলেন।  এছাড়াও তিনি একাধিকবার কক্সবাজার সদর-রামু আসনে জামায়াতের ইসলামীর দলীয় প্রার্থী হিসেবে ‘দাঁড়িপাল্লা’ প্রতীকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

তিনি নারী শিক্ষা বিস্তারে কক্সবাজারে সর্বপ্রথম ইসলামিয়া মহিলা কামিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

error: Content is protected!! অন্যের নিউজ নিয়ে আর কতদিন! এবার নিজে কিছু লিখতে চেষ্টা করুন!!