জন্ম হচ্ছে আরেক ফিলিস্তিন?

বাংলাদেশ ঘিরেই স্বপ্ন রোহিঙ্গাদের!

মা-বাবা মিয়ানমারের হলেও জুনায়েদের জন্ম
কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবিরে। শুদ্ধ বাংলা বলায় অনেক বাংলাদেশিকেও হার মানাবে এই কিশোর। গত ১ মার্চ ব্যাটারিচালিত রিকশা চালিয়ে সে কুতুপালং শরণার্থী শিবির এবং বালুখালীসহ নতুন শিবিরগুলো ঘুরিয়ে দেখানোর সময় জানায়, শরণার্থী পরিচয়পত্রও আছে তার। রোহিঙ্গা শিবির ছেড়ে নারায়ণগঞ্জে গিয়ে বাসে বাসে আচার বিক্রিও করে সে। এক বোনকে বিয়ে দিয়েছে বগুড়ায়।

মিয়ানমার কবে ফিরবে জানতে চাইলে জুনায়েদ জানায়, মিয়ানমার কোনোভাবেই তার দেশ নয়। তার জন্ম এ দেশেই। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে অন্য এক বন্ধুর সঙ্গে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে মিয়ানমারের ভেতরে কিছু দূর গিয়েছিল সে। কিন্তু ঘরবাড়ি আগুনে জ্বলতে দেখে আর গুলির শব্দ শুনে ফিরে এসেছে।

গত সপ্তাহে রোহিঙ্গা শিবিরে বিভিন্ন বয়সী শতাধিক রোহিঙ্গার সঙ্গে আলাপকালে তাদের ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে তাদের একজনও ফেরার আগ্রহ দেখায়নি। সবাই বলেছে, মিয়ানমারে তাদের ফেরার পরিবেশ নেই। তাদের ওপর যে নিপীড়ন হয়েছে তার বিচার, ক্ষতিপূরণ, নিরাপত্তা, নাগরিকত্ব—এসব পাওয়ার পরই ফেরার প্রশ্ন আসবে। কেউ কেউ তাদের জন্য ‘স্বাধীন দেশ’ করে দেওয়ার কথাও বলেছে।

মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে আসা ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসনের কোনো লক্ষণ নেই। ফিরিয়ে নিতে প্রস্তুত বলে জানালেও মিয়ানমার গত ১৮ মাসে এমন কোনো দৃশ্যমান উদ্যোগ নেয়নি যাতে রোহিঙ্গারা ফিরতে উৎসাহী হয়। বরং ফেরার অনিশ্চয়তার মধ্যে রোহিঙ্গারা এ দেশে বাঁচার জন্য যে সংগ্রাম করছে, তাতেই ধীরে ধীরে তাদের শিকড় গাড়ছে এ দেশে। আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ঘিরে তৎপরতা বাড়ছে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা ও তাদের সহযোগী দেশি-বিদেশি বেসরকারি সংস্থাগুলোর (এনজিও, আইএনজিও)। যেন এ দেশে রোহিঙ্গাদের অস্তিত্ব আর এনজিওগুলোর তৎপরতা এক সূত্রে মিলেছে। রোহিঙ্গাদের ফিরতে নিরুৎসাহিত করা, প্রত্যাবাসনবিরোধী সমাবেশে ব্যানার, ফেস্টুন সরবরাহের অভিযোগও আছে কিছু এনজিও ও তাদের কিছু কর্মীর বিরুদ্ধে। আবার রোহিঙ্গা শিবিরে ও বিদেশে অবস্থানরত শিক্ষিত ও অবস্থাসম্পন্ন রোহিঙ্গারাও ব্যানার, ফেস্টুন তৈরিতে উৎসাহ দিয়েছে বলে জানা গেছে। এ ছাড়া নিষেধ অমান্য করে আশ্রয়শিবিরের কিছু স্কুলে রোহিঙ্গা শিশুদের বাংলায় পাঠদান ও পরীক্ষা নেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের লক্ষ্যে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশে সই হওয়া প্রত্যাবাসন চুক্তিতে প্রথম পর্যায়ে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাস থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের পরিচয় যাচাই সাপেক্ষে স্বেচ্ছায়, নিরাপদ ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসনের কথা বলেছে। তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পর ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসের আগে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার বিষয়ে আলোচনার কথা রয়েছে। ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসের আগে বাংলাদেশে শরণার্থী হিসেবে নিবন্ধিত প্রায় ৩০ হাজার এবং অনিবন্ধিত প্রায় তিন লাখ রোহিঙ্গা ছিল বলে ধারণা করা হয়।

মিয়ানমারে মানবাধিকারবিষয়ক জাতিসংঘের স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার ইয়াংহি লি গত ২৫ জানুয়ারি ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, রোহিঙ্গারা শিগগিরই ফিরে যাবে না। মিয়ানমারের ভেতরে রোহিঙ্গাদের জন্য ‘সেফ জোন’ (নিরাপদ অঞ্চল) গড়ার প্রস্তাব ও কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসান চরে নেওয়ার পরিকল্পনার ব্যাপারেও তিনি উদ্বেগ জানান।

মংডুর উত্তরে নেশং থেকে আসা ফাইয়াজুর রহমান (২০) এখন বালুখালী-২ (ক্যাম্প ১১)-এর বাসিন্দা। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশে আসার চার-পাঁচ মাস পরই আশ্রয়শিবিরের মধ্যে একটি দোকান খুলেছেন তিনি। ১১ সদস্যের পরিবারের জন্য তিনটি কার্ড পেয়েছেন। মাথাপিছু মাসিক সহায়তা মিলে ৭৭০ টাকা করে।

মিয়ানমারে ফিরবেন কিনা জানতে চাইলে ফাইয়াজুর রহমান বলেন, ‘সবাই বলে মুসলমানদের অধিকার দেবে, শান্তি দেবে। কিন্তু ধোঁকাবাজ। ধোঁকাবাজের কাছে যেতে হলে বাংলাদেশ যে রকম রক্ত ঢেলেছে, এ রকম রক্ত ঢালতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বর্মীরা কোনো দিন আমাদের অধিকার দেবে না। পৃথিবী যদি অস্ত্র দিয়ে স্বাধীন করে দেয় তাহলে দেবে। এমনিতে গেলে দুই বছর, তিন বছর হয়তো শান্তি দেবে। ১৯৯১ সালে রোহিঙ্গা এসেছে। অনেকে দ্বিতীয়বার, তৃতীয়বার এসেছে। এবার শেষবার। এবারও যদি ফেরত যাই তাহলে আমাদের কী হালত হবে?’

ফাইয়াজুর রহমান বলেন, ‘ওইটায় ঠ্যাংয়ের তলে মাটি নাই। আমাদের কথা কেউ শুনবে না। আমরা তো ভাসা (ভাসমান)। আল্লাহ সমাধান চায় না। তাই আমাদের এভাবে শাস্তি দিছে।’

তিনি জানান, ২০১৭ সালে মিয়ানমার বাহিনী রাখাইনে রোহিঙ্গাবিরোধী অভিযান শুরু করলে তাঁরা আর বাঁচতে পারবেন না বলেই ধরে নিয়েছিলেন। সেই সময় মিয়ানমার বাহিনী রোহিঙ্গা নারীদের যৌন নির্যাতনও করেছিল। এমন প্রেক্ষাপটে মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে তাঁদের গ্রামের উপযুক্ত সব নারী ও পুরুষ বিয়ে করেছিলেন। এরপর পালিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন তাঁরা। তবে ফাইয়াজুরের এটিই প্রথম বাংলাদেশে আসা নয়। কয়েক বছর আগে তিনি বাংলাদেশে ঢুকে চট্টগ্রামের পটিয়ায় একটি মাদরাসায় পড়ালেখাও করেছেন। তাঁর মতো আরো অনেকে এভাবে এসে পড়ালেখা এবং পরে এ দেশে বিয়েও করেছেন।

তিনি আরো জানান, মিয়ানমারে থেকে যাওয়া তাঁর স্বজনরা সেখানে আর কত দিন থাকতে পারবেন তা নিয়ে এখনো ঘোর অনিশ্চয়তার মধ্যে আছেন।

উখিয়ার পশ্চিম বালুখালী রোহিঙ্গা শিবিরের এক নম্বর সড়কের পাশে গড়ে ওঠা জমজমাট বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে দেদার বার্মিজ ও বাংলাদেশি পণ্যের বেচাকেনা চলছে। মংডুর বলিরবাজার থেকে আসা জাফর সওদাগর সেখানে তিনটি দোকান খুলেছেন। এখন দিনে অন্তত ৫০ হাজার টাকার পণ্য বিক্রি হয় বলে জানান তিনি।

বালুখালী পান বাজারে এক রোহিঙ্গা কিশোরকে তার বাড়ির বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে সে আশ্রয়শিবির দেখায়। আগে বাড়ি কোথায় ছিল জানতে চাইলে সে উত্তর দেয়, ‘বার্মা’।

ওই কিশোর জানায়, মিয়ানমারে তাদের বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কিছুই আর অবশিষ্ট নেই। মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার কোনো আগ্রহই তার নেই।

বালুখালী শিবিরের আরো ভেতরে লুৎফর রহমান নামে এক রোহিঙ্গা জানান, মংডু থেকে ১২ মাইল দূরে উডং গ্রামে তাঁদের বাড়ি ছিল। সব ফেলে আজ তাঁরা এখন বাংলাদেশে।

তিনি বলেন, ‘সবাই ফিরে গেলে আমিও ফিরে যাব। তবে আমি জানি, সবাই যাবে না। সব হারিয়ে আমরা এ দেশের দয়ায় ঠাঁই পেয়েছি। আমরা এখানেই মরতে চাই।’

গত ১ মার্চ বালুখালী রোহিঙ্গা শিবিরের একটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় খুতবার আগে রোহিঙ্গা ইমাম বলছিলেন, আল্লাহ যাকে ইচ্ছা বাদশাহ বানিয়ে দেন, আবার যাকে ইচ্ছা নিঃস্ব করে দেন। এ ক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের চেয়ে বড় প্রমাণ আর কী হতে পারে? কত বিত্তবান রোহিঙ্গা নিঃস্ব হয়ে এ দেশে এসেছে। তিনি মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতেরও উদাহরণ দেন। নামাজের পর ইমাম সাহেব দোয়া করছিলেন, মুসলমান হিসেবে মুসলমানের দেশে যাতে তাদের মৃত্যু হয়। এরপর সবাই সমস্বরে বলে, ‘আমিন’।

সেদিন বিকেলে বালুখালীর আরেকটি আশ্রয়শিবিরে বয়োবৃদ্ধ এক রোহিঙ্গা শরীরে মিয়ানমার বাহিনী ও রাখাইনদের নির্যাতনের ক্ষত দেখিয়ে জানান, ‘আঁরা না যাইমু। বর্মাত মারি ফালাইবো। জায়গাও নাই, কিছু নাই। আঁরা গিয়া কি কত্তাম’ (আমরা যাব না। মিয়ানমারে আমাদের মেরে ফেলবে। জায়গা-জমি কিছুই নেই। ফিরে গিয়ে কী করব?)

বুথিডং থেকে আসা সুলতান মাহমুদ (৬০) জানান, তাঁর পা মিয়ানমার বাহিনীর দোসররা কেটে ফেলেছে। আহত অবস্থায় পরিবারের লোকজন তাঁকে গামছায় বেঁধে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে।

মিয়ানমারে ফিরে যাবেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মরি গেলে অনিক ভালো হইবো’।

তিনি জানান, রোহিঙ্গা নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের মিয়ানমার বাহিনী ঘরে আটকে আগুন দিয়ে মেরেছে। তিনি আর সেখানে ফিরতে চান না।

সংশ্লিষ্টরা বলছে, রোহিঙ্গাদের জন্য বিদেশি সহায়তার পরিমাণ আগের চেয়ে কমছে। এই সংকটের রাজনৈতিক সমাধান না হলে এটি ফিলিস্তিনের মতো ভয়াবহ সংকটে রূপ নেবে। বাংলাদেশ এরই মধ্যে বিশ্ব সম্প্রদায়কে সংকটের ভয়াবহতার বিষয়ে সতর্ক করেছে।
সূত্র: কালের কণ্ঠ।

কক্সবাজার ভিশন.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ
error: Content is protected !!